শনিবার, ২৫ আগস্ট, ২০১২

নদীর পাড় ভেঙে নৌকাডুবি: হারিয়ে গেল সুজনের ঈদ আনন্দ

চিলমারী সংবাদঃ
অনেক আশা করে বেরিয়ে ছিল বাবা-মা ভাই বোনের সাথে নৌকায় ঘুরে ঘুরে ঈদের আনন্দ উপভোগ করবে সবার মতো কিন্তু তা আর হলো না সুজনের। নদীর পাড়েই তলেই হারিয়ে গেলো তার সব আনন্দ।
কুড়িগ্রামের চিলমারীতে ঈদ আনন্দ উপভোগ করার জন্য গত শুক্রবার নিজ নৌকা যোগে স্ত্রী-সন্তানকে নিয়ে সোলার পাড়া এলাকার আমিনুল ইসলাম নৌকা যোগে বের হলে সন্ধ্যার দিকে ফকিরের হাট ঘাটে এসে পৌঁছায়। এসময় নদীর পাড় ভেঙে নৌকার উপর পড়ে তৎক্ষনিক ভাবে নৌকাটি ডুবে যায়। তাদের চিৎকারে লোকজন এসে আহত অবস্থায় স্বামী-স্ত্রী ও দু’সন্তানকে উদ্ধার করলেও শিশু সন্তান সুজনকে পাওয়া যায়নি। আহতদের উলিপুর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।
জানা গেছে, জেলার উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের সোলার পাড়া এলাকার আমিনুল ইসলাম(৩৫) স্ত্রী সুরুজভান(২৭), মেয়ে আমিনা (১০) ও দুই ছেলে আলামিন(১২) এবং সুজন(৮)কে নিয়ে নিজ ডিংগী নৌকা যোগে নদী পথে সবার মতো ঈদ আনন্দ উপভোগ করার জন্য নৌকা নিয়ে বের হয় আনুমানিক ৪টার সময় চিলমারী উপজেলার ফকিরের হাট ঘাটের কিনারায় পৌঁছালে নদীর পাড় ভেঙ্গে নৌকার উপর পড়ে এবং তৎক্ষানিক নৌকাটি নদীতে তলিয়ে যায়।
এসময় তাদের চিৎকারে লোকজন ছুটে এসে প্রথমে স্বামী-স্ত্রী পরে এক মেয়ে ও ছেলেকে উদ্ধার করলেও সুজনকে পায়নি। পরে স্থানীয় লোকজন আহতদের উলিপুর হাসপাতালে ভার্তি করেন। এদিকে শিশু সন্তান সুজনকে না পেয়ে বাবা-মা পাগল প্রায়।
শনিবার সকালে এ রিপোট লেখা পর্যন্ত শিশু সুজনের কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।
এব্যাপারে রানীগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ মঞ্জুরুল ইসলাম (মঞ্জু) ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন।

কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন