শনিবার, ২৭ অক্টোবর, ২০১২

২৭অক্টোবর ভাওয়াইয়া সম্রাট আব্বাস উদ্দিনের ১১১তম জন্মদিন

আজ ভাওয়াইয়া সম্রাট আব্বাস উদ্দিনের ১১১তম জন্মদিন thumbnail
২৭অক্টোবর ছিল ভাওয়াইয়া সম্রাট আব্বাস উদ্দিনের ১১১তম জন্মদিন। তার স্মৃতিধন্য কুড়িগ্রামের মানুষ আজও তাকে আর ভাওয়াইয়াকে লালন করছে আপন ভালোবাসায়। শুধু সংগীত চর্চা করা হলেও তার স্মৃতিচিহৃগুলো সংরক্ষনের তেমন কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি।
আব্বাস উদ্দিন আহমদ ১৯০১ সালের ২৭ অক্টোবর ভারতের কুচবিহার রাজ্যের বলরামপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। পিতা জাফর আলী আহমদ ছিলেন আইনজীবি। বিপুল ধনসম্পদের অধিকারী। কিন্তু সবকিছু ছেড়ে আব্বাস উদ্দিন ১৯৪৭ সালে ভারত-পাকিস্থান বিভক্তির দিনই ভারতের কোলকাতা থেকে ঢাকায় চলে আসেন। যিনি স্বপ্ন দেখতেন স্বাধীন-সার্বভৌম রাষ্ট্রের। যে জন্য তিনি জীবনের সোনালী সময় ব্যায় করেছেন, মানুষকে স্বাধীনভাবে বাঁচতে উদ্বুদ্ধ করেছেন গানে গানে। তিনি চলে আসেন স্বাধীন রাষ্ট্রে-সকল ধনসম্পদ ত্যাগ করে শূণ্যহাতে স্ত্রী, সন্তানদের নিয়ে। ঢাকায় স্থায়ী হয়েই তিনি এ দেশের মানুষকে গানের দিকে উদ্বুদ্ধ করতে থাকেন। প্রত্যন্ত এলাকায় ঘুরে ঘুরে সংগীত চর্চা কেন্দ্র খোলার ব্যবস্থা করেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সাংস্কৃতিক সমাবেশসহ নানা অনুষ্ঠানে ভাওয়াইয়াকে পৌছে দিয়েছেন ভাওয়াইয়া সম্রাট আব্বাস উদ্দিন।
এক রকমের পৃষ্টপোষকতা ছাড়াই কুড়িগ্রাম অঞ্চলের প্রাণের গান ভাওয়াইয়া এখনো সমৃদ্ধ। তাই এই গানকে টিকিয়ে রাখতে সরকারী-বেসরকারী সহযোগিতা প্রয়োজন। তবেই ভাওয়াইয়া আরও সমৃদ্ধ হবে, ছড়িয়ে যাবে সারা বিশ্বে।
আব্বাসউদ্দিনই প্রথম ভাওয়াইয়াকে রেকর্ড করে সকলের সামনে উপস্থাপন করেন। তার প্রথম রেকর্ডকৃতগান হলো- ‘ওকি গাড়য়াল ভাই কত রব আমি পন্থের দিকে চায়া রে…’ এবং ‘ফান্দে পড়িয়া বগা কান্দে রে…’।
সেই সাথে বিভিন্ন রাজনৈতিক সভায় গান গেয়ে বাঙালিদের উদ্বুদ্ধ করতেন। গাইতেন ‘ওঠরে চাষী জগৎবাসী, ধর কষে লাঙল’। শুধু ভাওয়াইয়া গানই নয় তিনি বাংলা ইসলামী গানেরও স্রষ্ঠা। কাজি নজরুল ইসলামকে দিয়ে লিখিয়ে নিয়েছিলেন বাংলা ইসলামিক গজল। আজও সকলের কন্ঠে ওঠে ‘ও মন রমজানের ঐ রোজার শেষে এলো খুশির ঈদ’। এ ছাড়াও উর্দু, জারি, সারি, ভাটিয়ালি, মুর্শিদি, দেহতত্ব, মার্সিয়া, পালাগান গেয়েছেন। শুধু গানই নয় আব্বাস উদ্দিন ৪টি সিনেমায় অংশ নেন। সিনেমাগুলো হলো ‘বিষ্ণমায়’ (১৯৩২), ‘মহানিশা’ (১৯৩৬), ‘একটি কথা’ এবং ‘ঠিকাদার’ (১৯৪০)।
ভাওয়াইয় সম্রাট আব্বাস উদ্দিন স্মরণে কুড়িগ্রামে চলছে ব্যাপক আয়োজন। এ উপলে আজ বাংলাদেশ  ভাওয়াইয়া একাডেমী, ভাওয়াইয়ার আসর ও বাংলাগানের দল মেঠোজন আয়োজন করেছে পৃথক কর্মসূচি।

শনিবার, ৬ অক্টোবর, ২০১২

বাহাদুর হত্যাকান্ড:পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে চিলমারীতে বিক্ষোভ মিছিল


বাহাদুর হত্যাকান্ড:পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে চিলমারীতে বিক্ষোভ মিছিল thumbnail

চিলমারী সংবাদঃ
কুড়িগ্রামের চিলমারীতে পুলিশি বাধা উপেক্ষা করে এলাকাবাসী নিহত ছাত্রলীগ নেতা বাহাদুরের হত্যাকারীদের গ্রেফতার ও বিচারের দাবীতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে।
শনিবার সকালে খুনিদের গ্রেফতারের দাবীতে বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসীরা উপজেলা পরিষদ চত্বরে জমায়েত হলে স্থানীয় পুলিশ তাদেরকে বাধা দিয়ে ছত্রভঙ্গ করে দেয়।
পরবর্তীতে বিক্ষুদ্ধ এলাকাবাসী দুপুর ১টায় পুনরায় একত্রিত হয়ে নিহত বাহাদুরের বাড়ি সংলগ্ন সংযোগ সড়কে একটি বিশাল মানব বন্ধন করে। পরে সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করা হয়।
বিক্ষোভ মিছিলিটি উপজেলার গুরুত্বপুর্ণ সড়কগুলো প্রদক্ষিণ শেষে বাহাদুরের বাড়িতে গিয়ে শেষ হয়।
উল্লেখ্য, গত ১ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগের এক পক্ষের হামলায় মারাতœকভাবে আহত ছাত্রলীগ নেতা বাহাদুর ৪ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে ৪ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দিবাগত রাত আনুমানিক ৩টার সময় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়।

শুক্রবার, ৫ অক্টোবর, ২০১২

শুদ্ধ জাতীয় সংগীত প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত


চিলমারী সংবাদঃ 

কুড়িগ্রামের চিলমারীতে শুদ্ধ জাতীয় সংগীত প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
কুড়িগ্রাম জেলা শিল্পকলা একাডেমীর উদ্যোগে প্রতিটি উপজেলায় শুদ্ধ জাতীয় সংগীত প্রশিক্ষণ কর্মশালার অংশ হিসেবে  বুধবার সকালে চিলমারী উপজেলা রিসোর্স সেন্টারে শুদ্ধ জাতীয় সংগীত প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়।
উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীরবিক্রম এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণ কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে জেলা প্রশাসক মোঃ হাবিবুর রহমান, বিশেষ অতিথি হিসেবে জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ শামছুল আলম, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক অধ্য রাশেদুজ্জামান বাবু উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন। প্রশিক্ষণে প্রতিটি মাধ্যমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৩জন করে শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।

বুধবার, ৩ অক্টোবর, ২০১২

কোচিং বাণিজ্য বন্ধে চিলমারীতে জেলা প্রশাসকের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

চিলমারী সংবাদঃ 
শিক্ষকদের কোচিং বাণিজ্যের কারণে আমাদের শিক্ষা ক্ষেত্রে এক অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোতে ছাত্র-ছাত্রী উপস্থিতি অনেকটা কমে গেছে। কোচিং বাণিজ্যের সাথে জড়িত শিক্ষকদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। গত বুধবার দুপুরে চিলমারী উপজেলা পরিষদ সভাকক্ষে অনুষ্ঠিত কোচিং বাণিজ্য বন্ধে প্রতিষ্ঠান প্রধানদের সাথে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে কুড়িগ্রাম জেলা প্রশাসক মোঃ হাবিবুর রহমান উপরোক্ত কথাগুলো বলেন। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীরবিক্রমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মামুন-উল-হাসান, জেলা শিক্ষা অফিসার শামছুল আলম, জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মোঃ রাশেদুজ্জামান বাবু, থানাহাট পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলহাজ্ব এ, কে, এম নুর-ইসলাম বাদশাহ প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। মতবিনিময় সভায় উপজেলার মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধানরা উপস্থিত ছিলেন।

চিলমারীতে তথ্য অধিকার নিশ্চিতকরণে কমিউনিটি রেডিও‘র ভূমিকা শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

চিলমারী সংবাদঃ 
১০তম আন্তর্জাতিক তথ্য অধিকার দিবস/২০১২ উদযাপন উপলক্ষ্যে তথ্য অধিকার নিশ্চিতকরণে কমিউনিটি রেডিও‘র ভূমিকা শীর্ষক সেমিনার গতকাল বুধবার সকাল ১০টায় আরডিআরডিএস বাংলাদেশ চিলমারী প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে রেডিও চিলমারীর উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়।
ফ্রি প্রেস আনলিমিটেড ও বাংলাদেশ এনজিওস নেটওয়ার্ক ফর রেডিও এন্ড কমিউনিকেশন (বিএনএনআরসি) এর সহায়তায় রেডিও চিলমারীর উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ও গোলাম হাবিব মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ জাকির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীরবিক্রম উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যের বক্তব্য রাখেন, চিলমারী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ লুৎফর রহমান, সাংবাদিক ও নাট্যকার নাজমুল হুদা পারভেজ, রেডিও চিলমারীর স্টেশন ইনচার্জ বশির আহমেদ, চিলমারী প্রেস ক্লাবের সভাপতি নজরুল ইনসলাম সাবু, সাধারণ সম্পাদক শ্যামল কুমার বর্ম্মণ, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা অফিসার মোঃ শহিদুল ইসলাম, থানাহাট ইউনিয়ন সমাজ কল্যাণ সংস্থার চেয়ারম্যান মোঃ ওয়াজেদ আলী, প্রবীন সাংবাদিক এম, এ, আই লালমিঞা, নারী নেত্রী মোছাঃ মালেকা বেগম প্রমুখ। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন রেডিও চিলমারীর উন্নয়ন সংবাদ সম্পাদক সাংবাদিক এস, এম নুরুল আমিন সরকার। সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন বিএনএনআরসির প্রোগ্রাম অফিসার মোঃ জাহিদুল ইসলাম খান। প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান শওকত আলী সরকার বীরবিক্রম বলেন, তথ্য চাওয়া এবং পাওয়া সকল মানুষের নাগরিক অধিকার। কোথায় গেলে কোন তথ্য পাওয়া যাবে, তা জনসাধারণকে জানাতে পারে রেডিও চিলমারী। রেডিও চিলমারী এই অঞ্চলের গণমানুষের তথ্য প্রবাহের বলিষ্ট মাধ্যম হিসেবে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। সেমিনারে রেডিও চিলমারীর উপদেষ্টা ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য, স্বেচ্ছাসেবক, স্থানীয় সাংবাদিক, শিক্ষক ও স্রোতা ক্লাবের সদস্যবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।

চিলমারীতে প্রাথমিক শিক্ষার উপর তথ্য প্রদান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

চিলমারী সংবাদঃ
চিলমারীতে প্রাথমিক শিক্ষার উপর তথ্য প্রদান বিষয়ক কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সকালে চিলমারী উপজেলা শিক্ষক মিলনায়তনে বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা  প্লান বাংলাদেশের সহযোগিত ও ইএসডিও এর উদ্যোগে উপজেলা শিক্ষক মিলনাতনে উপজেলা শিক্ষা অফিসার সম্ভু চরন দাসের সভাপতিত্বে কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মামুন-উল-হাসান উপস্থিত থেকে বক্তব্য রাখেন। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ মোবাশ্বের আলম ও ইএসডিও এর সেক্টর কো-অর্ডিনেটর নির্মল মজুমাদার প্রমুখ। কর্মশালায় জানানো হয়, চিলমারী উপজেলার ৭৪টি পও্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৩ হাজার ২‘শ ৭৬ জন শিক্ষার্থীকে রং পেন্সিল, খাতা, কলম, পেন্সিল, সাপনার ই- রেজার, ঢুটবল, স্কিপিং ও লুডু প্রদান হরা হবে।

চিলমারীতে উদ্দীপনের সেলাই প্রশিক্ষণ সমাপ্ত

চিলমার সংবাদঃ 
 চিলমারীতে উদ্দীপনের সেলাই প্রশিক্ষণ সমাপ্ত হয়েছে। পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন (পিকেএসএফ) এর অর্থায়নে মঙ্গা নিরসনে সমন্বিত উদ্যোগ (সংযোগ) কর্মসূচীর আওতায় হতদরিদ্রদের আত্ম কর্মসংস্থানমূলক কর্মসূচীর অংশ হিসেবে মাসব্যাপী সেলাই প্রশিক্ষণের সমাপনি অনুষ্ঠান আজ সকালে উদ্দীপন কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত হয়। শাখা ব্যবস্থাপক মোঃ শাহজামাল এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মামুন-উল-হাসান, বিশেষ অতিথি হিসেবে চিলমারী প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি এস, এম নুরুল আমিন সরকার বক্তব্য রাখেন। পরে মাসব্যাপী সেলাই প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারী ২৫ জনের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ করা হয়।

কোনটি ঠিক ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ নাকি ‘অর্ধেক তোমার অর্ধেক হামার’


সাওরাত হোসেন সোহেলঃ


‘একটি বাড়ি একটি খামার’ এই শ্লোগান এখন বদলে হয়েছে ‘অর্ধেক তোমার অর্ধেক হামার!’ চিলমারী উপজেলার পিছিয়ে পড়া হত- দরিদ্র জনগোষ্ঠী খানা মানদন্ড অনুযায়ী (গ্রামের দরিদ্র নারী যিনি খানা প্রধান, শুধু বসত ভিটা আছে এমন খানা, ভিটে বাড়ি সহ ৫০ শতক জমি আছে এমন ব্যক্তি যার নিয়মিত আয়ের উৎস নেই) ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পে অন্তভুক্তি হওয়ার কথা থাকলেও তালিকা জুড়ে নাম রয়েছে প্রভাবশালীদের। সব মিলে দুর্নীতির বীজ দিয়ে যেন শুরু হয়েছে এই প্রকল্পের কাজ।
মহাজোট সরকার প্রধান ঘোষিত একটি বাড়ী একটি খামার”-প্রকল্প বাস্তবায়নের লক্ষে কুড়িগ্রামের চিলমারী উপজেলার মানুষের উন্নয়নের লক্ষে প্রথম পর্যায়ে থানাহাট, রমনা মডেল, রানীগঞ্জ ও চিলমারী মোট ৪টি ইউনিয়নের ৩৬টি দল গঠন করে প্রতিটি দলে ৬০জন করে নেওয়া হয়। ২ হাজার ১ শত ৬০ বাড়ী অন্তরর্ভুক্ত করে কাজ শুরু করলেও, লুঠে-পুঠে খাওয়ার অভিযোগ উঠেছে।
নাম ধারী দলীয় নেতা/কর্মী ও কিছু প্রাভাবশালীদের সঙ্গে নিয়ে তাদের প্রভাবে মেম্বার, চেয়ারম্যান, প্রকল্প বাস্তুবায়নকারী বিআরডিবি কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের অনিয়ম ও দুর্নীতির ছোবল থেকে রেহাই পাচ্ছে না প্রকল্প আওতায় সুবিধাভোগী মানুষগুলো। ফলে প্রকল্পের মূল ল্য অর্জন ব্যাহত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে।
অফিস সুত্রে জানা গেছে, ইতি মধ্যে দালালী পাড়া দলে ২লাখ ২০ হাজার, কড়াই বরিশাল গ্রামে ১লাখ ২০ হাজার, ঢুষ মারা গ্রামে ১লাখ ২০ হাজার, শাখাহাতি গ্রামে ১লাখ ৮৬ হাজার মনতোলা গ্রামে ১লাখ ২০ হাজার টাকা সহ ২৬দলে প্রায় ৩৫ লাখ টাকার সল্প সুদে ঋণ বিতরন করা হয়েছে। বাকি রয়েছে ১০টি দল। এ দলগুলো দেখা শুনার দায়িত্বে রয়েছে বিআরডিপি’র সমন্নয় কারী সিরাজুল ইসলাম (অতিঃ দাঃ), অফিস সহকারী নাজমুন নাহার, মাঠকর্মী আহসান হাবিব।
কয়েকটি দলে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দায়িত্ব প্রাপ্তরা দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকে তারা নানা অজুহাত দেখিয়ে কিছু প্রাভাবশালীদের সহযোগীতায় বিভিন্ন দল থেকে সরকারী নিয়ম-নীতিকে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে মোটা অংকের উৎকোচ গ্রহন করে আসছে। এই ঋণ দেওয়ার ওজুহাতে নতুন সদস্য ভর্তির কথা বলে দায়িত্বপ্রাপ্তরা ও বিভিন্ন দলের সভাপতি, সাধারন সম্পাদক অফিসের কথা বলে নতুন ও পুরাতন সদস্যদের কাছ থেকে জনপ্রতি ৫০০ থেকে ১৫০০/= টাকা পর্যন্ত উৎকোচ গ্রহন করেছে বলে একাধিক সুত্রে জানা গেছে।
রমনা খামার এলাকার আঃ রহিম জানায় সে এবারে নতুন সদস্য হওয়ার সময় ১৫০০ টাকা নিয়েছে দলের ম্যানেজার। মাছাবান্দা দলের জমিলা জানায়, নাম নেওয়ার সময় মশিউর মেম্বার ৩হাজার টাকা নিয়েছে আরো টাকা চেয়েছিল গরু দিবের কথা বলে না দিতে পারায় ১২টি গাছ দিয়েছিল সেগুলোও সব মরে গেছে। একই এলাকার রোজিনা, জোবেদা সহ কয়েক জন জানান, অফিসের কথা বলে তাদেরও কাছ থেকে মেম্বার ৩ হাজার টাকা নিয়েছে।
বিভিন্ন দল ও এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানা গেছে মেম্বার ও এই প্রকল্পের দায়িত্ব প্রাপ্তরা অফিসের কথা বলে বিভিন্ন সময় নানান অজুহাত দেখিয়ে সদস্যদের কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহন করেছে।
দল থেকে বের হয়ে আসা ফকির পাড়া এলাকার জহর উদ্দিন জানান, এ কথা আর কন না বাহে একটি বাড়ি একটি খামার মানে ‘অর্ধেক হামার অর্ধেক তোমার’। হামরা কি আর পাই সব অফিসার আর দায়িত্বে যামরা আছে তামরায় পায়।
অভিযুক্ত থানাহাট ইউনিয়নের ৯নং ওয়াডের মেম্বার মশিউর রহমানের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এটা তো অনেকদিন আগের কথা অন্যরাতো ৫হাজার থেকে ১০হাজার টাকা নিয়েছে সুবিধাভুগীদের কাছে সেটা দেখননা। কিন্তু দায়িত্বে থাকা অফিস সহকারী, সমন্নয়ককারীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা ঢাকায় আছে বলে জানান।
এ ব্যাপারে আরডিও মোঃ সামজিদুল ইসলামের সাথে কথা হলে তিনি জানান, এর আগে যিনি দায়িত্বে ছিলেন সেই সময় দল হয়েছে ২০টি সেই সময় কিছু দুর্নীতি হয়েছে। আর আমি দায়িত্ব পাওয়ার পর দল হয়েছে ১৬টি এগুলোর কোন দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া যায়নি।
পরে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ মামুন-উল-হাসান জানান, আমি এখনো কোন অভিযোগ পায়নি পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে। সুত্রঃ http://www.kurigramnews.net